ধর্ষণ মহামারী:এক ভাইয়ের আর্তনাদ


ধর্ষণ মহামারী: এক ভাইয়ের আর্তনাদ
আমার কোন বোন নাই। ছোট বেলা থেকে এই অভাবটা আমি কিছুটা অনুভব করতাম। মামা বাড়িতে বড় হওয়ার কারণে সমবয়সী কাজিনদের কারণে কিছুটা বোনের অভাব পূরন হইছিলো। কিন্তু বড় হওয়ার পর দুষ্টুমির জন্য একটা বোনের বড়ই অভাববোধ করতে লাগলাম।

কিন্তু এখন দেশের যেই অবস্থা। আমি সৃষ্টিকর্তার কাছে শুকরিয়া জানাই তিনি আমার বাবা মায়ের ঘরে কোন কন্যা সন্তান দেন নি সেই জন্য। আজ এত এত মেয়ে ধর্ষিত হচ্ছে। তাদের মধ্যে যদি আমার বোনও থাকতো। আমি যদি আমার বোনকে নিরাপত্তা দিতে না পারতাম, নিজেকে নিজেই ক্ষমা করতে পারতাম না।

আমার বোন যদি লজ্জায় আত্মহত্যা করতো, আমি নিজেকে ক্ষমতা করতে পারতাম কি? আশেপাশের পাড়া প্রতিবেশিরাই আমার বোনকে ছিঃ ছিঃ দিতো, ধিক্কার দিয়ে তার বেচে থাকার ইচ্ছাটাই মেরে ফেলতো।

আমার পরিচিত, কাজিন, ফ্রেন্ড, ক্লাসমেট যেই সকল মেয়েদের সাথে কথা বলা হয় মাঝেমধ্যে। তাদেরকে একটা কথাই বলতে হয়, শেষের দিকে, সাবধানে থেকো কিংবা টেইক কেয়ার। লজ্জা করে এটা বলতে তাদের।

এর কারণ কি জানেন?
কারণ আমি পুরুষ, আর আমার মতোই আরেকটা পুরুষই হয়তো তার উপর ঝাপিয়ে পড়ার জন্য অপেক্ষা করতেছে সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি। পুরুষ হিসেবে লজ্জা করে আমার।

প্রতিটা ভাইয়ের উচিৎ নিজের বোনের প্রতি আরেকটু সচেতন হওয়া। আপনি তাকে ইচ্ছামতো দুষ্টামি করে কাদাতে পারবেন। কিন্তু অন্য কোন কারণে সে কাদলে আপনি সহ্য করতে পারবেন তো?

নিজের বোনের প্রতি আরো সচেতন হোন, স্ত্রীর প্রতি ও কেয়ারফুল হোন। এভাবে মেয়েদের লজ্জিত হতে দিয়েন না।

যেখানে একজন মহিলা বাবা বলেও কুলাঙ্গারদের লালসা থেকে রেহাই পান নি সেখানে ভাবতেই হয়, আমার মমতাময়ী মা নিরাপদ তো ?

লেখক:
আব্দুল হালিম
আব্দুল হালিম
শিক্ষার্থী
মদনমোহন কলেজ, সিলেট

No comments

Powered by Blogger.